একজন বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে যখন আপনার ১৮ বছর পূর্ণ হবে তখন অবশ্যই আপনাকে জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য নিবন্ধন করতে হবে। আর যখন আপনি নিজের নাগরিকত্বের জন্য নিবন্ধন করবেন তখন কারণে অকারণে আপনাকে বিভিন্ন সময় স্মার্ট কার্ড চেক (Smart Card Check) করার প্রয়োজন হবে। কিন্তুু তখন যদি আপনি স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম গুলো না জানেন তখন কিন্তুু আপনি কোনো ভাবে আপনার নিজস্ব Smart Card Check করতে পারবেন না। 

আর আজকের আর্টিকেলে আমরা এই বিষয়টি নিয়ে পূর্ণাঙ্গ ভাবে আলোচনা করবো। যেন, আপনি আপনার প্রয়োজনে যেকোন সময় নিজের স্মার্ট কার্ড চেক করে নিতে পারেন। এর পাশাপাশি কিভাবে আপনি স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন সে বিষয় নিয়েও বিস্তারিত আলোচনা করবো। যেন আপনি কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই নিজের  স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করে নিতে পারেন। আর এই বিষয় জানতে হলে অবশ্যই আপনাকে আজকের পুরো আর্টিকেল টি মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে। 

স্মার্ট কার্ড চেক ও ডাউনলোড করার নিয়ম
স্মার্ট কার্ড চেক ও ডাউনলোড

স্মার্ট কার্ড কি? | What is smart card in Bangla ? 

সহজ কথায় বলতে গেলে, বর্তমানে স্মার্ট ভোটারদের জন্য বিশেষ এক ধরণের কার্ডের ব্যবহার করা হয়। যাকে আমরা বলে থাকি Smart Card । মূলত এই স্মার্ট ভোটারদের কথা বিবেচনা করে ২০১৬ সালে সর্বপ্রথম স্মার্ট কার্ড এর সূচনা করা হয়েছিলো। আর এই স্মার্টকার্ডের সূচনালগ্নে সবচেয়ে বেশি অবদান ছিলো NIDW এর। অর্থ্যাৎ, Bangladesh National Identity Registration Wing. আর সময় এর সাথে সাথে বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের সর্বস্তরের নাগরিকেরা এখন এই স্মার্ট কার্ড এর সুবিধা ভোগ করে আসছে। 

মূলত এই ধরনের Smart Card গুলোর মধ্যে বিশেষ এক ধরণের মাইক্রো চিপ যুক্ত করা থাকে। এবং কোনো একটি স্মার্টকার্ড এর মধ্যে নির্দিষ্ট একজন ব্যক্তির নাম, ছবি, পরিচয়, বায়োমেট্রিক বিবরণসহ আরো ৩২ ধরণের সিটিজেন ডেটা থাকে। যার কারণে স্মার্ট কার্ডধারী একজন ব্যক্তি যেকোনো সময়, যেকোনো মূহুর্তে প্রযুক্তি এর সর্বস্তরে নিজের বৈধতা কে প্রকাশ করতে পারবে। আর এই ধরণের বিশেষ চিপযুক্ত কার্ড কে বলা হয়, স্মার্ট কার্ড। 

কেন স্মার্ট কার্ড চেক করবেন? 

সত্যি বলতে আপনার বিভিন্ন প্রয়োজনে স্মার্ট কার্ড চেক করার দরকার হবে। যেমন ধরুন, আপনি একজন নতুন ভোটার হিসেবে নাগরিকত্বের জন্য নিবন্ধন করেছেন। তো এই সময়ে আপনার সদ্য নিবন্ধন করার জন্য আপনার সেই স্মার্ট কার্ড টি আসতে অনেকটা সময়ের প্রয়োজন হবে। এক্ষেত্রে আপনি চাইলে আপনার স্মার্ট কার্ডের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন। 

এর পাশাপাশি আপনার সদ্য নিবন্ধিত স্মার্ট কার্ডে থাকা কোনো তথ্যে ভুল থাকলে সে সম্পর্কে আপনি জেনে নিতে পারবেন। এবং যদি কোনো প্রকার ভুল তথ্য থাকে সেক্ষেত্রে আপনি সেই ভুল তথ্য গুলো কে সংশোধন করার জন্য ব্যবস্থা নিতে পারবেন। আর এ জাতীয় কারণ গুলোর জন্য আপনাকে অবশ্যই Smart Card Check করার প্রয়োজন হবে। 

কিভাবে স্মার্ট কার্ড চেক করবেন? 

তো আর্টিকেল এর এই পর্যন্ত আপনি স্মার্ট কার্ড কি এবং কেন আপনার Smart Card Check করতে হবে সে নিয়ে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। এখন আপনার মনে প্রশ্ন জেগে থাকতে পারে যে, কিভাবে স্মার্ট কার্ড চেক করতে হয়। আর যদি আপনার মনে এই ধরণের প্রশ্ন জেগে থাকে তবে আমি আপনাকে বলবো যে, এমন ২ টি উপায় আছে। যে উপায় গুলো অনুসরণ করে আপনি খুব সহজেই আপনার স্মার্ট কার্ড চেক করে নিতে পারবেন। চলুন এবার সেই উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক। 

স্মার্ট কার্ড চেক করার উপায়-১

এবার আমি আপনাকে সবচেয়ে সহজ একটি উপায় সম্পর্কে বলবো। যে উপায় টি অনুসরণ করে আপনি খুব সহজেই আপনার ব্যক্তিগত কিংবা অন্য কারো Smart Card চেক করে নিতে পারবেন। তবে এই উপায় টি  যদি অনুসরণ করতে চান তাহলে আপনাকে বেশ কিছু ধাপ অনুসরণ করতে হবে। চলুন এবার সেই স্মার্ট কার্ড চেক করার নিয়ম গুলো সম্পর্কে ধাপে ধাপে জেনে নেয়া যাক। 

  1. এই নিয়মে সবার আগে আপনার একটি মোবাইল এবং কম্পিউটার এর প্রয়োজন হবে। 
  2. এরপরে আপনাকে একটি Browser চালু করতে হবে। 
  3. সেই ব্রাউজার থেকে আপনাকে সরাসরি চলে যেতে হবে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এর মধ্যে। 
  4. আপনি চাইলে গুগলে সার্চ করে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবেন৷ কিন্তুু যদি আপনার সমস্যা হয়। তাহলে আপনি এখানে ক্লিক করেও সরাসরি সেই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারবেন। 

আপনি যখন উপরে দেওয়া লিংকে ক্লিক করবেন। তখন যে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবেন। সেখানে আপনি আরো বেশ কিছু অপশন যুক্ত ফরম দেখতে পারবেন। মূলত এই ফরম টি আপনাকে যথেষ্ট গুরুত্বের সাথে পূ্রণ করতে হবে। আর এই কাজটি করার জন্য আপনাকে নিচের পদ্ধতি গুলো ফলো করতে হবে। 

স্মার্ট কার্ড স্ট্যাটাস চেক
স্মার্ট কার্ড স্ট্যাটাস চেক
  1. শুরুতে আপনি “জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর / ফর্ম নম্বর” দেখতে পারবেন। এখানে আপনি আপনার প্রিন্টকৃত ভোটার আইডি কার্ডের নম্বরটি বসিয়ে দিবেন। আর যদি আপনি নতুন ভোটার হয়ে থাকেন। তাহলে আপনি আপনার ফরম নম্বর দিন। 
  2. তার ঠিক নিচের ফাঁকা বক্স গুলোতে আপনাকে আপনার জন্ম তারিখ বসিয়ে দিতে হবে। এখানে আপনার জন্মতারিখ এর সঠিক দিন, মাস এবং বছর টি বসিয়ে দিবেন। 
  3. যখন আপনি আপনার জন্মতারিখ বসিয়ে দিবেন। তার ঠিক নিচে আপনি একটা ক্যাচপা দেখতে পারবেন। মূলত এই ক্যাপচা টি আপনাকে সঠিক ভাবে পূরন করে সাবমিট দিতে হবে।

যখন আপনি উপরের সব তথ্য দিয়ে সাবমিট নামক অপশনে ক্লিক করবেন ঠিক তখনি আপনি আপনার স্মার্ট কার্ড চেক করে নিতে পারবেন। 

স্মার্ট কার্ড চেক করার উপায়-২

উপরে আপনি বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে Smart Card Check করার জন্য Online পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। তবে অনেকের কাছে এই অনলাইন পদ্ধতি টি বেশ ঝামেলা মনে হতে পারে। কারন, এখনও এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা অনলাইনে তেমন একটা দক্ষ নয়। তবে যদি আপনার উপরের পদ্ধতিটি কঠিন মনে হয় তাহলে আপনি দ্বিতীয় পদ্ধতিটি অনুসরণ করতে পারবেন। কেননা, এই পদ্ধতিতে আপনি SMS এর মাধ্যমে আপনার স্মার্ট কার্ড এর সকল তথ্য চেক করে নিতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ অনলাইনে জমির খতিয়ান বের করার নিয়ম

তবে আপনি যদি এসএমএস এর মাধ্যমে আপনার নিজের Smart Card Check করতে চান। তাহলে আপনাকে বেশ কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। চলুন এবার সে সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

sms এর মাধ্যমে স্মার্ট কার্ড চেক
sms এর মাধ্যমে স্মার্ট কার্ড চেক
  1. প্রথমেই আপনাকে আপনার মোবাইল ফোনের মেসেজ অপশনে যেতে হবে। 
  2. এরপর মেসেজে গিয়ে টাইপ করতে হবে PC এরপর একটা <Space> দিয়ে আপনার ভোটার আইডি নম্বর কিংবা স্লিপ নম্বর টি টাইপ করতে হবে। 
  3. তারপর আপনাকে সেই টাইপ করা মেসেজ টি পাঠিয়ে দিতে হবে 105 নাম্বারে। 

তো যখন আপনি উপরের ধাপ গুলো অনুসরণ করে স্মার্ট কার্ড স্ট্যাটাস সম্পর্কে জানতে চাইবেন। তখন মেসেজ পাঠানোর পর আপনাকে কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হবে। এবং ফিরতি ম্যাসেজে আপনি আপনার Smart Card Status জেনে নিতে পারবেন। 

স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করার নিয়ম ২০২২ 

উপরের আলোচনা থেকে আপনি স্মার্ট কার্ড চেক করার উপায় গুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। তবে এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা মূলত স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করতে চায়। কিন্তুু তারা সঠিক পদ্ধতি না জানার কারনে তাদের স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করতে পারছে না। আর সেই কারণে এবার আমি Smart Card Download করার উপায় নিয়ে আলোচনা করবো। তো চলুন এবার সেই উপায় গুলো জেনে নেয়া যাক।

স্মার্ট কার্ড
স্মার্ট কার্ড

তাহলে কিভাবে আপনি স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করবেন। সত্যি বলতে, আপনি চাইলেও অনলাইনের মাধ্যমে স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন না। কারণ, আমি শুরুতেই বলেছি যে, এটি হল এক ধরণের চিপ সংযুক্ত Smart Card. যা আপনাকে স্ব শরীরে নির্বাচন অফিস থেকে সংগ্রহ করে নিতে হবে। আপনি চাইলে অনলাইনে NID card ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

স্মার্ট কার্ড চেক ও ডাউনলোড নিয়ে কিছুকথা 

প্রিয় পাঠক, বর্তমান সময়ে আমাদের বৈধ নাগরিক হিসেবে প্রকাশ করার জন্য প্রয়োজন হবে Smart Card এর। কিন্তুু আপনি যদি এখনও স্মার্ট কার্ড না পেয়ে থাকেন। তবে আপনার প্রয়োজন হবে স্মার্ট কার্ড চেক করা। আর আজকের এই আর্টিকেলে আমি খুব সহজে Smart Card Check করার নিয়ম গুলো নিয়ে আলোানা করেছি। 

এর পাশাপাশি কিভাবে আপনি আপনার স্মার্ট কার্ড ডাউনলোড করবেন। সে সম্পর্কেও পরিস্কার ধারনা দেয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করি, এই বিষয়ে আপনার মনে আর কোনো ধরণের প্রশ্নের অবকাশ থাকবে না। আর যদি আপনি এমন সব অজানা বিষয় গুলো জানতে চান। তাহলে অবশ্যই আমাদের সাথে থাকবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.